আমাদের অ্যাভারেজ লাইফ খুব কমই আমাদের অরিজিনাল ফিলিংসগুলারে অ্যাকোমোডেড করতে পারে

62561735_10156201766302093_5579929585778163712_n

জুলিয়ান বার্নসের দ্য অনলি স্টোরি নভেলটার সেকেন্ড পার্টের শেষের দিকে একটা সিন আছে, মেইন যে কারেক্টার, সে তার ডিসিশানটা নিতে পারে। একটা হোটেল রুমে ভ্যান গগেঁর গমক্ষেতে কাকের ছবিটা টাঙানো দেইখা ভাবে, এইটা যদি অরিজিনাল ছবিটা হইতো, তাইলে মুশকিলই হইতো, ঠিকঠাকমতো সে রিড করতে পারতেছে কিনা, ঠিক এক্সপ্রেশন দিতে পারতেছে কিনা, যেইভাবে দেখতে পারার কথা সেইভাবে দেখতে পারতেছে কিনা… এইসব নিয়া একটা টেনশনেই পড়তে হইতো। অথচ এইটা ফেইক বা কপি বইলা এইরকম কোন টেনশন নাই, জাস্ট অন্য যে কোন একটা ছবির মতোই দেয়ালে ঝুলানো আছে। তারে এভেয়ড কইরা, ডেইলি লাইফের মতোই একটা জিনিস ভাইবা নিজেদের কাজকামগুলা করা যাইতেছে।…

তো, এইরকম ফেইক বা কপি টাইপ ইমোশনগুলার কাছেই আমাদের থাইকা যাইতে হয়, এইটা মোর ইজিয়ার, টু লিভ বাই। বাঁইচা থাকাটারে এতোটা কমপ্লিকেটেড কইরা তোলে না। অরিজিনাল বইলা যে কিছু নাই, তা না, সেইটা রেয়ার ঘটনাই। আর আমরার যখন এইরকম কোন অরিজিনাল আর্ট বা ফিলিংসের সামনে হইতে হয় তখন একটু টেনশনে পইড়া যাইতে হয়।

কিন্তু মুশকিল মেবি তার পরের ঘটনাটা, যখন এই টেনশনের টাইমটা বা বিহ্বলতার টাইমটা পার হয়, তখন তারে এড়ায়া চলতে হয়, এইটাই মেবি তরিকা, অ্যাভারেজ লাইফস্টাইলের। আরো এক কদম আগায়া, ফেইক ইমোশনগুলার ভিতর ঘুরপাক খাইতে খাইতে যখন ট্রু কোন ইমোশনের সামনাসামনি আমরা হই, তখন বরং নিজেরে বুঝ দিতে থাকি, আরে এইটা তো আরেকটা কপিই! ফেইক জিনিসই! দেখেন না, এইটা এইটা তো ভুল! 🙂

এইভাবে ভাবতে পারাটা, নো ডাউন, আমাদেরকে হেল্প করে। কিন্তু লাইফটারে ধীরে ধীরে অন্ধও কইরা তোলে মনেহয়। একটা সেন্স অফ ট্রুথ বা অরিজিনালিটিরে অ্যাপ্রিশিয়েট করার অ্যাবিলিটিটা আমরা হারায়া ফেলি, সারা জীবনের লাইগাই।

অরিজিনালরে কপি বা কপিরে অরিজিনাল – এইরকম প্যাঁচ লাগায়াও বাঁইচা থাকতে হইতে পারে। মানে, এই ইল্যুশনগুলা জরুরি। এইটা একটা গ্রেটার পার্ট, লাইফের।

চাক দে ইন্ডিয়া সিনেমাতে শাহরুখ খান সবসময় তার ব্রোঞ্জের ছোট মেডেলটা হাতাইতে থাকে, একজন তারে জিগায়, সারাক্ষণ এইটা ঘঁষতে থাকেন ক্যান? সে হাসে, যেন কোন সিক্রেট ধরা পইড়া গেছে, কয়, গোল্ড তো জিততে পারি নাই, এই কারণে ব্রোঞ্জটারে ঘঁষতে থাকি, ঘঁষতে ঘঁষতে যদি কোনদিন ব্রোঞ্জটারে গোল্ড বানায়া ফেলতে পারি! যিনি বলতেছিলেন আর যিনি শুনতেছিলেন, দুইজনেই হাসেন তখন। কারণ এইটা তো কোনদিনও হয় না!

আমাদের অ্যাভারেজ লাইফ খুব কমই আমাদের অরিজিনাল ফিলিংসগুলারে অ্যাকোমোডেড করতে পারে আসলে, মেবি পারেই না। কিন্তু এই না-পারাটারে গ্লোরিফাই করার কিছু নাই বা হাইড করারও কিছু নাই আসলে। তো, যদি কোন অরিজিনালিটির সামনাসামনি আমরা হই, সেইটারে অ্যাপ্রিশিয়েট করার মোমেন্টটা যাতে আমরা হারায়া না ফেলি। এইটুক অ্যাপ্রিশিয়েট করতে পারাটাই মেবি লাইফের আল্টিমেট একটা ঘটনা।…

 

আরো পড়তে পারেন

এই পর্যন্ত
স্কাই ইজ দ্য লিমিট ত অনেক হইছে। এইটা লোভ এখন, পুঁজিবাদের; রিসিশনের সময়ে। নিজের আকাঙ্খারে ক...
বিকাল আসতেছে ধীরে
  বিকাল আসছে ধীরে, মেঘনার পাড়ে। বৃষ্টি আইসা ছুঁইলো তারে। বেড়ার হোটেলে, চায়ের ক...
মিনিং
এই জিনিসটারেই আমি সবচে বেশি ডরাই এখন; 'মিনিং' তৈরির করার অথরিটি'টারে। আফ্রিদা'র মরা'র খবর ...
বিপ্লব করাটা না, বরং বিপ্লব কর...
বিফোর ট্রিলজির ফার্স্ট পার্ট বিফোর সানরাইজে রাস্তায় হাঁটতে হাঁটতে নায়িকা তাঁর বাপ-মা'র কথা...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *