জুলাই ২৭, ২০১৪। (২)

 

টেম্পোতে ওঠার আগে চাচাতো ভাইয়ের ফ্রেন্ডের সাথে কথা বলতেছিল শে । ঘাড়ে পাউডার মাইখাও ঘামতেছিল । লুঙ্গি পইড়া চইলা আসাতে সেও যাই যাই করতেছিল । কলেজ কি আজকে এতো দেরি কইরা ছুটি দিলো? না, না আমি ত আরেকটা কাজে আসছিলাম! এইটুক কথার পরে মেয়েটা টেম্পুতে ওইঠা যায় । ওর হাসি হাসি মুখ শে আর লুকাইয়াই রাখতে পারে না । অতো হাসিস না লো ছেড়ি, পাশে বইসা থাকা পাশের বাড়ির খালা কয়, মুখ টিইপা হাসতে হাসতে ।

 

আরো পড়তে পারেন

লেখকের পেশা, জীবন-যাপন, ভণ্ডাম...
একজন কবি’র পেশা আসলে কী হওয়া উচিত, বাংলাদেশে, এই টাইমে? মানে, ভ্যাগাবন্ড বা বিপ্লবী হওয়া ছ...
নায়ক ও ভিলেন এবং নায়িকা
অদৃষ্টের, মানে না-দেখার হাত এতোটাই লম্বা যে, মনে হইতে থাকে যা কিছু দেখাইলাম না, সেইসব কিছু...
স্ট্রাগল অফ মিনিং
তপনরায় চৌধুরী’র অরিয়েন্টালিজম রিডিংটা নিয়া লিখবো বইলা ভাবছি অনেক আগেই। কিন্তু লেখা হইতেছে ...
।। আর্ট ক্রিটিক ।।
আমি যেই ছবিটা দেখছিলাম সেইটা ছিল অনেকটা পেন্সিল স্কেচ; পোলাটা আরো ইয়াং, কলেজ ছাত্র টাইপ, জ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *