অন বাঁইচা থাকা

1200x630wa

মইরা যাওয়ার চাইতে বাঁইচা থাকা’টা ভালো। মানে, চাইলে তো মইরা যাওয়া যায়-ই। এইটা আমার হাতেই আছে। আমি পারি। অনেককিছুই আমি করতে পারি। কিন্তু পারি বইলাই কইরা ফেলতে হবে, এইরকম না। বরং কি কি আমি করতে পারি, কিন্তু করি না, সেইটাই ঘটনা, বেশিরভাগ সময়।

বেশিরভাগ সময়ই লাইফ আনবিয়ারেবল। মানে, লাইফ নিয়া যদি আপনি ভাবতে চান। মিনিংলেস তো! জোর কইরা কোন মিনিং ইম্পোজ করারও কিছু নাই। অইটা আরেকটা প্রেশার। চারপাশ এতো প্রেশার দিতে চাইবে আপনারে। এইটা করেন, অইটা করেন! এইটা ভালো, এইটা খারাপ! কিন্তু এইসবের তো কোন দরকার নাই। বলারও দরকার নাই, আমি এইসব কেয়ার করি না। আমি পাত্তা দেই বা দেই না। এই জিনিসটাই আজাইরা। বাঁইচা থাকার মতোই।

বাঁইচা থাকাটারে না বলাটা সহজ, হ্যাঁ বলাটাই কঠিন। কোন মানে নাই, তারপরও বাঁইচা আছেন – এইরকম অ্যাবসার্ড না; মিনিংটা জরুরি না। কোন মিনিং যদি থাকে, যদি ক্রিয়েট করা যায় তো ভালো; কিন্তু জরুরি না। না চাইলেও বাঁইচা থাকা যায় তো! মরা’র লাইগা বরং ‘কারণ’ দরকার! যে কোন কারণেই মইরা যাওয়া যায়। যেহেতু যায়, মরবোই, খুবই সার্টেন একটা ঘটনা। আমি এর লাইগা আর ওয়েট করি না। আমি চাই কোনদিন সে-ই আমারে খুঁইজা নিক। আমি না চাইলেও নিবে। আমার চাওয়া, এতো ইর্ম্পটেন্ট কিছু না। এইরকম ইনসিগনিফিকেন্ট হইতে সাহস লাগে। এই কারণে, Continue reading

অন কনফেশন

download

কনফেশন কখনোই পছন্দের জিনিস না আমার। কনফেশনে যেইটা হয় আপনি খালি আপনার একটা ভার্সনই কইতে পারেন। আধুনিক ব্যক্তি যখন ব্যক্তি হয়া উঠতেছেন তখন এইরকম স্টেটমেন্ট অনেক জরুরি জিনিস ছিল। আমার ধারণা, সিক্সটিইজেই এই জিনিস মারা গেছে। মানে, ব্যক্তি বইলা ব্যক্তিরে আপহোল্ড করার কিছু নাই। ব্যক্তি বরং সার্টেন ইমেজ বা কনফার্মেশন অফ সার্টেন থটের ভিতরে নিজেরে এক রকম বাইন্ধা ফেলতে পারছে। ব্যক্তি বইলা কিছু নাই, তা না, ব্যক্তি জিনিসটা মেবি ব্যক্তিত্ব টাইপ একটা ঘটনাতে গিয়া শেষ হইছে। বাজেই হইছে এইটা। যার ফলে, কনফেশন ব্যাপারটা ব্যক্তির এক্সটেনশন আর ঘটাইতে পারে না, বরং কনফার্মেশনের জায়গাটাতেই ফিরা যাইতে থাকে।…

মানে, আমি বলতে চাইতেছি, এই ব্যক্তি হিসাবে আমার স্বীকার করার কিছু নাই। অথচ চারপাশের একটা চাপ সবসময়ই থাকে ব্যক্তির উপরে, যে, আপনি কনফেশন করেন! স্বীকার করেন বা অস্বীকার করেন! এইটা বাদে আপনি ব্যক্তি হিসাবে আপনার কোন পজিশন আপনি ক্লেইম করতে পারবেনই না! কিন্তু এই স্বীকার করা বা অস্বীকার করাটা কোনকিছুই মিন করে না। এই কনফেশনাল অ্যাটিটুডটারে বরং ব্যক্তিরে একটা পাপেট বানায়া রাখার ফ্রেমওয়ার্ক বইলা সন্দেহ হয় আমার। Continue reading

আমাদের অ্যাভারেজ লাইফ খুব কমই আমাদের অরিজিনাল ফিলিংসগুলারে অ্যাকোমোডেড করতে পারে

62561735_10156201766302093_5579929585778163712_n

জুলিয়ান বার্নসের দ্য অনলি স্টোরি নভেলটার সেকেন্ড পার্টের শেষের দিকে একটা সিন আছে, মেইন যে কারেক্টার, সে তার ডিসিশানটা নিতে পারে। একটা হোটেল রুমে ভ্যান গগেঁর গমক্ষেতে কাকের ছবিটা টাঙানো দেইখা ভাবে, এইটা যদি অরিজিনাল ছবিটা হইতো, তাইলে মুশকিলই হইতো, ঠিকঠাকমতো সে রিড করতে পারতেছে কিনা, ঠিক এক্সপ্রেশন দিতে পারতেছে কিনা, যেইভাবে দেখতে পারার কথা সেইভাবে দেখতে পারতেছে কিনা… এইসব নিয়া একটা টেনশনেই পড়তে হইতো। অথচ এইটা ফেইক বা কপি বইলা এইরকম কোন টেনশন নাই, জাস্ট অন্য যে কোন একটা ছবির মতোই দেয়ালে ঝুলানো আছে। তারে এভেয়ড কইরা, ডেইলি লাইফের মতোই একটা জিনিস ভাইবা নিজেদের কাজকামগুলা করা যাইতেছে।…

তো, এইরকম ফেইক বা কপি টাইপ ইমোশনগুলার কাছেই আমাদের থাইকা যাইতে হয়, এইটা মোর ইজিয়ার, টু লিভ বাই। বাঁইচা থাকাটারে এতোটা কমপ্লিকেটেড কইরা তোলে না। অরিজিনাল বইলা যে কিছু নাই, তা না, সেইটা রেয়ার ঘটনাই। আর আমরার যখন এইরকম কোন অরিজিনাল আর্ট বা ফিলিংসের সামনে হইতে হয় তখন একটু টেনশনে পইড়া যাইতে হয়।

কিন্তু মুশকিল মেবি তার পরের ঘটনাটা, যখন এই টেনশনের টাইমটা বা বিহ্বলতার টাইমটা পার হয়, তখন তারে এড়ায়া চলতে হয়, এইটাই মেবি তরিকা, অ্যাভারেজ লাইফস্টাইলের। আরো এক কদম আগায়া, ফেইক ইমোশনগুলার ভিতর ঘুরপাক খাইতে খাইতে যখন ট্রু কোন ইমোশনের সামনাসামনি আমরা হই, তখন বরং নিজেরে বুঝ দিতে থাকি, আরে এইটা তো আরেকটা কপিই! ফেইক জিনিসই! দেখেন না, এইটা এইটা তো ভুল! 🙂

এইভাবে ভাবতে পারাটা, নো ডাউন, আমাদেরকে হেল্প করে। কিন্তু লাইফটারে ধীরে ধীরে অন্ধও কইরা তোলে মনেহয়। একটা সেন্স অফ ট্রুথ বা অরিজিনালিটিরে অ্যাপ্রিশিয়েট করার অ্যাবিলিটিটা আমরা হারায়া ফেলি, সারা জীবনের লাইগাই।

অরিজিনালরে কপি বা কপিরে অরিজিনাল – এইরকম প্যাঁচ লাগায়াও বাঁইচা থাকতে হইতে পারে। মানে, এই ইল্যুশনগুলা জরুরি। এইটা একটা গ্রেটার পার্ট, লাইফের।
Continue reading

অন হেইট্রেট

25598241613_9a17720b9b_hate-e1462568195198

আগেও কয়েকবার বলছি মনেহয়, আপনি কোন জিনিসটারে হেইট করতেছেন, সেইটা নিয়া সাবধান থাইকেন! ইভানচুয়ালি ইউ গেট অ্যাডিক্টেড টু দ্যাট। ঘৃণার মতোন বড় অ্যাডিকশন খুব কমই আছে। :(

এইটা খুবই হয়। এইটা আরেকবার মনে হইতেছে, জুলিয়ান বার্নসের ‘দ্য অনলি স্টোরি’ নভেলটা পড়তে গিয়া। মেইন যে কারেক্টার, সুসান, হ্যাজবেন্ডের মদ-খাওয়ারে খুবই হেইট করতো আর এন্ড-আপ বিইং অ্যা অ্যালকোহলিক, খুবই বাজে ভাবে। (এই কারণেই যে ঘটনাটা ঘটে, তা না। যখন শে ফ্রাস্ট্রেটেড হয়, তখন অপশন হিসাবে এমার্জ করে।) এমনো হয়, যারা ‘মিথ্যা কথা’ বলারে হেইট করেন, দেখবেন, নিজেরাই মিথ্যা কথা বলতে শুরু করেন, আর বলতে থাকেন, আরে, আমি তো মিথ্যা কথা বলারে ঘৃণা করি, আমি কেন মিথ্যা কথা বলবো! ইমোশনরে লজিক হিসাবে ইউজ করা শুরু করি আমরা, একটা সময়! টেরও পাই না মেবি। :(

তো, ব্যাপারটা খালি দোস্তি’র না, দুশমনিরও; মেইনলি অ্যাটাচমেন্টের। কি কি জিনিস নিয়া আমি কনসার্নসড হইতেছি, পক্ষে হোক আর বিপক্ষে হোক। Continue reading

দোস্ত, দুশমন

download

এইরকম একটা কথা আছে যে, মানুষের বন্ধু-বান্ধব দেখলে আন্দাজ করা যায়, মানুষটা কেমন। কিছু মিল না থাকলে তো আর দোস্তি হয় না। কিন্তু এর চাইতে আরো সিগনিফিকেন্ট মনেহয়, শত্রুতার ব্যাপারটা বা যার আপনি বিরোধিতা করতেছেন, সেই জায়গাটা। মানে, আপনি কারে শত্রু ভাবতেছেন বা কোন জিনিসগুলারে – সেইটা দিয়াও একটা মানুষরে বুঝা যাইতে পারে। দোস্তির মতোন শত্রুতাও, আমার কাছে মনেহয়, একটা লেভেলেরই ঘটনা, একটা সার্কেলেরই ব্যাপার। মানে, আমার যদি কনসার্ন না-ই থাকে, সেই জিনিসটারে তো আমার শত্রু মনে হওয়ার কোন কারণই নাই। দোস্তি আর দুশমনি একটা সার্কেলেরই ঘটনা, এইভাবে যে, আমরা কনসার্নড, বোথ পার্টি নিয়া।

আরেকটা জিনিস হইলো, এই কনসার্নড জিনিসগুলাই আমাদেরকে ডিফাইনড করতে থাকে বা থট-অ্যাক্টিভিটিরে ইনফ্লুয়েন্স করতে থাকে। এই কারণে কার সাথে দোস্তি করতেছি – এইটার যেমন একটা ভ্যালু আছে, কার সাথে দুশমনি করতেছি, সেইটারও ইমপ্যাক্ট আছে আমাদের লাইফে। Continue reading