‘দু-চার বসন্ত আমি ঘোরালাম সামান্য লেখাকে’: উৎপলকুমার বসু’র কবিতা নিয়া

কবি উৎপলকুমার বসু

উৎপল-এর কবিতা পড়ছি, ভাবছিও অনেক। একজন কবি আসলে কি নিয়া কবিতা লিখবো – এইটা ঠিক করার পর কবিতা লিখতে বসেন না, কিন্তু কবিতা লেখার পর থিকাই আসলে এই প্রশ্নটা আসতেই থাকে যে, কেন লেখা হইলো কবিতাটা? কেন লিখতেই হইলো?

আমরা এইভাবেই অভ্যস্থ আসলে, কবিতা পড়তে। কিন্তু একটা কবিতার মূল উদ্দেশ্য তো আসলে প্রথমে কবিতা হয়া উঠা। একটা কবিতা কিভাবে কবিতা হয়া উঠলো কিংবা হইতে পারলো না, সেইটাও হইতে পারে কবিতারই বিচার; কবিতার সামাজিকতা, রাজনৈতিকতা, দার্শনিকতা নিয়া কথা-বার্তা তো হইতেই পারে, কিন্তু কবিতা’টা কেমনে কবিতা হয়া উঠলো, সেইটাও দেখাটা দরকার।

অথচ ধইরা নেয়া হয় যে, কবিতা হইছে বইলাই ত কবিতা নিয়া কথা; কিন্তু কিভাবে এইটা কবিতা হইলো, সেইটা সবসময়ই বাদ থাকে। কবিতার আলোচনায় এইটারেই বরং মুখ্য কইরা তোলাটা বেশি জরুরি বইলা আমি মনে করি।     Continue reading