খালেদা জিয়া ও শেখ হাসিনার পাবলিক ফোনালাপ

“ছোট একটা জায়গা, ছোট্ট একটা জায়গার মধ্যেই আমি ঘুরি।” – খালেদা জিয়া।

 

বাহুল্য-ই হইতেছে কবিতা। আমাদের কথাবার্তার ভিত্রে যেইসব কথা না-বললেও কোন সমস্যা নাই, অ-দরকারি; সেই জায়গাগুলারে আমরা কাব্য/কবিতা হিসাবে কনজিউম করতে পারি। এইটার আরেকটা প্রমাণ পাইলাম খালেদার জিয়ার কথাতে; যেইখানে তিনি বলতেছেন, “ছোট একটা জায়গা, ছোট্ট একটা জায়গার মধ্যেই আমি ঘুরি।” অডিওটা আমি শুনি নাই, যে অল্প একটু ট্রান্সক্রিপ্ট করা হইছে সেইটুকুই পড়ছি বাংলানিউজটুয়েন্টফোরডটকমে; যেহেতু পুরাটা শুনি নাই, শেখ হাসিনাও হয়তো এইরকমের অ-দরকারি কথা বা কাব্য/কবিতা বইলা থাকতে পারেন। Continue reading

বাংলাভাষার হেফাজতকারী প্রথম আলো পত্রিকা কি ‘পারমিশন’ বলার ‘অনুমতি’ দিবে না?

‘৪৮ ঘণ্টা পর আর সমাবেশের পারমিশনের (অনুমতি) জন্য অপেক্ষা করব না।’ – খালেদা জিয়া, প্রথম আলো পত্রিকার খবর (নিউজ)।/

খালেদা জিয়া যে উনার বক্তৃতার মধ্যে ‘পারমিশন’ শব্দটা কইছেন, সেইটারে ব্রাকেটে ‘অনুমতি’ বইলা পরিচয় করাইয়া দিছেন নিউজ রাইটার এবং সম্পাদক। কিন্তু এই পরিচয় বা অনুবাদ এর উদ্দেশ্যটা সর্ম্পকে সচেতন হওয়াটা জরুরি। এর মানে এই না যে, যাঁরা প্রথম আলো পত্রিকা পড়েন, তারা ‘পারমিশন’ শব্দের অর্থ জানেন না, বরং উনারা পারমিশন শব্দের জায়গায় যে ‘অনুমতি’ শব্দটা ব্যবহার করা দরকার, এই সাজেশনই দিতে চাইছেন।

তবে খালেদা জিয়া যে ‘অনুমতি’ না কইয়া ‘পারমিশন’ কইছেন এইটাতে আমার সমর্থন আছে। কারণ, পারমিশন শব্দের যে রুক্ষতা (র’নেস) এবং কটাক্ষ (স্যাটায়ার প্রবণতা) সেইটা অনুমতি শব্দের আনুগত্যের মধ্যে নাই। আবেগের দিক থিকা এইটা শেখ মুজিব এর ‘দাবায়া’ শব্দেরই সমধর্মী প্রায়।