হিউম্যান ন্যাচাররে ডিল করতে হইলে একটু মিলাইয়া ঝুলাইয়া ভাবতে পারতে হবে…

ডাইভারজেন্ট সিনেমার পোস্টার

বছর দুয়েক আগে ঈদের ছুটিতে ভৈরব গিয়া প্রেসক্লাবে বইসা চুরি’র কাহিনি শুনছিলাম একটা; মনসুর ভাইয়ের বাসার, উনি নিজেই বলতেছিলেন। খুবই ইন্টারেস্টিং কাহিনি। স্পেশালি যেমনে পরে চোরের মুখ থিকা চুরির ঘটনাটারে উনি বাইর করলেন। বাড়ির দেয়ালের পাশে গাছ বাইয়া দুইতলার জানালা পর্যন্ত যাওয়াটা খুবই রিস্কি ব্যাপার, যতো এথলেটিক্যাল অ্যাবলিটিই থাকুক; ডরও লাগার কথা। তো, এইরকম চোরে’রা নেশার একটা অষুধ খাইয়া নেয় চুরি করতে যাওয়ার আগে, তাইলে এতো ডর লাগে না আর। ইজি হয় চুরির কাজ করাটা। সত্যি ঘটনা এইটা। ঢাকার আর্টিজানে যারা অ্যাটাক করছিলো অরাও অষুধ খাইয়া নিছিলো (এইরকম কথা শুনছিলাম)। আইএসএস-এও নাকি কোন যুদ্ধে যাওয়ার আগে সোলজারদেরকে একটা অষুধ খাইয়া নিতে হয়, এর্নাজাইজ করে তখন। আম্রিকান মিলিটারি’রা খাইতে পারে আরো সফিটসটিকেটেড কিছু। এই জিনিসগুলি মনে হইতেছিল Divergent সিনেমাটা দেখতে গিয়া।

ট্রেনিং-টুনিং সব ঠিকাছে, কিন্তু মেইন অপারেশনের আগে শরীরে কিছু কেমিক্যাল ঢুকাইয়া দিয়া কম্পিউটার প্রোগ্রামিং-এর ভিতর আটকাইয়া ফেলে একটা গ্রুপরে, যারা আরেকটা গ্রুপরে কোন মেন্টাল ঝামেলা ছাড়াই মাইরা ফেলতে পারে। এমনিতে তো আমরা ভাবি-ই যে ধর্ম, ন্যাশনালিজম বা কোন-না-কোন আইডিওলজির কাভারটা সার্টেন ফিলিংসের ভিতর দিয়া চুরি/ডাকাতি/খুনের ঘটনাগুলিরে জায়েজ কইরা ফেলে। কিন্তু যেই যেই ভাবে করে, সেইটাও পার্ট অফ দ্য গেইম। সায়েন্স, টেকনোলজিক্যাল ইনোভেশন – একটা বড়রকমের ডিসাইডিং ফ্যাক্টর, উইপেন। এমন না যে খুব বাইরে থিকা, চালাকির সাথে কোনকিছু হইতেছে। বরং খুবই ভিজিবল জায়গাগুলিরে আমরা দেখতে চাই না। মেবি ভাবি যে, ধর্ম, ন্যাশনালিজম, আইডিওলজি না থাকলে এইগুলিরে ইউজ করা যাইতো না। তো, এইটারে রিভার্সের সম্ভাবনা আছে। মানে, এইগুলি থাকার দরকার-ই নাই, ধরেন, এক একটা সিরিঞ্জে এক একটা ফিলিংস আছে, জাস্ট ইনসার্ট কইরা দিলেন। Continue reading

চোর’রে আমার সালাম!

TSC-Indor-Field_Dhaka-University_0_2_0

 

Facebook e torko kora moha genjamer kaaj. Ektar meaning arekta hoi. – Ritu Pakhi.

 

একটা ও আরেকটা

Sumon Rahman একটা নোট লিখছেন, অনেকে নোটটাতে লাইক দিছেন, কমেন্ট করছেন এবং নোটটা শেয়ার করছেন। সেইখানে একটা মন্তব্য করতে গিয়া Ritu Pakhi এই বাক্য দুইটা লিখছিলেন।

উনার এই ‘একটা’ কথার ‘আরেকটা’ অর্থ করার চেষ্টা করি।

‘meaning’ ত কখনোই একটা না; ‘একটা’ হওয়া তখনই সম্ভব, যখন সবাই ‘এক’ হয়া যাইবো; মানে, Ritu Pakhi’র কথা সবাই Ritu Pakhi’র মতোই ভাববো এবং পড়বো; এইটা ছাড়া ‘এক’ ঘটনা ‘এক’ হওয়া কেমনে সম্ভব?

যদি এইটা হয়ও সেইটা খুবই বাজে একটা ঘটনা হইবো। এই যে ‘আরেকটা’রে ঠেকাইতে চাওয়া, এইটা সব মানুষের চিন্তারে একই টাইপ করতে চাওয়ার আকাংখা, মিলিটারী-ভাবনা… হইতে পারে বর্তমান বাংলাদেশের কলাম-লেখকদের এক ধরণের বুদ্ধিজীবিতা।

Continue reading