হিউম্যান ন্যাচাররে ডিল করতে হইলে একটু মিলাইয়া ঝুলাইয়া ভাবতে পারতে হবে…

ডাইভারজেন্ট সিনেমার পোস্টার

বছর দুয়েক আগে ঈদের ছুটিতে ভৈরব গিয়া প্রেসক্লাবে বইসা চুরি’র কাহিনি শুনছিলাম একটা; মনসুর ভাইয়ের বাসার, উনি নিজেই বলতেছিলেন। খুবই ইন্টারেস্টিং কাহিনি। স্পেশালি যেমনে পরে চোরের মুখ থিকা চুরির ঘটনাটারে উনি বাইর করলেন। বাড়ির দেয়ালের পাশে গাছ বাইয়া দুইতলার জানালা পর্যন্ত যাওয়াটা খুবই রিস্কি ব্যাপার, যতো এথলেটিক্যাল অ্যাবলিটিই থাকুক; ডরও লাগার কথা। তো, এইরকম চোরে’রা নেশার একটা অষুধ খাইয়া নেয় চুরি করতে যাওয়ার আগে, তাইলে এতো ডর লাগে না আর। ইজি হয় চুরির কাজ করাটা। সত্যি ঘটনা এইটা। ঢাকার আর্টিজানে যারা অ্যাটাক করছিলো অরাও অষুধ খাইয়া নিছিলো (এইরকম কথা শুনছিলাম)। আইএসএস-এও নাকি কোন যুদ্ধে যাওয়ার আগে সোলজারদেরকে একটা অষুধ খাইয়া নিতে হয়, এর্নাজাইজ করে তখন। আম্রিকান মিলিটারি’রা খাইতে পারে আরো সফিটসটিকেটেড কিছু। এই জিনিসগুলি মনে হইতেছিল Divergent সিনেমাটা দেখতে গিয়া।

ট্রেনিং-টুনিং সব ঠিকাছে, কিন্তু মেইন অপারেশনের আগে শরীরে কিছু কেমিক্যাল ঢুকাইয়া দিয়া কম্পিউটার প্রোগ্রামিং-এর ভিতর আটকাইয়া ফেলে একটা গ্রুপরে, যারা আরেকটা গ্রুপরে কোন মেন্টাল ঝামেলা ছাড়াই মাইরা ফেলতে পারে। এমনিতে তো আমরা ভাবি-ই যে ধর্ম, ন্যাশনালিজম বা কোন-না-কোন আইডিওলজির কাভারটা সার্টেন ফিলিংসের ভিতর দিয়া চুরি/ডাকাতি/খুনের ঘটনাগুলিরে জায়েজ কইরা ফেলে। কিন্তু যেই যেই ভাবে করে, সেইটাও পার্ট অফ দ্য গেইম। সায়েন্স, টেকনোলজিক্যাল ইনোভেশন – একটা বড়রকমের ডিসাইডিং ফ্যাক্টর, উইপেন। এমন না যে খুব বাইরে থিকা, চালাকির সাথে কোনকিছু হইতেছে। বরং খুবই ভিজিবল জায়গাগুলিরে আমরা দেখতে চাই না। মেবি ভাবি যে, ধর্ম, ন্যাশনালিজম, আইডিওলজি না থাকলে এইগুলিরে ইউজ করা যাইতো না। তো, এইটারে রিভার্সের সম্ভাবনা আছে। মানে, এইগুলি থাকার দরকার-ই নাই, ধরেন, এক একটা সিরিঞ্জে এক একটা ফিলিংস আছে, জাস্ট ইনসার্ট কইরা দিলেন। Continue reading

জুলাই ২৭, ২০১৪। (১)

1623694_1381100882153964_161221823_n

 

বি. আর. টি. সি.’র এসি বাস আসতে দেরি হইতেছিল; বাদশা পরিবহনেই ওইঠা পড়লাম । মোবাইলে আপনা দিল তো আওয়ারা’র ফিমেইল ভারশনটা শুনতেছিলাম । দুইজনের সিটে তিনজন বসতে হইছে ; বইসা থাকা একজন মহিলা দাঁড়াইয়া থাকা একজন মহিলার সাথে গারমেন্টসে উনাদের সমস্যা নিয়া কথা বলতেছেন । টঙ্গি এলাকায় থাকেন দুইজন । একজনের জামাই আছে লগে, আরেকজন ফোনে জামাইরে কইলেন তোমার লাইগাই ত দেরি হইলো । উনি ছেলেরে নিয়া যাইতেছন, জামাই ঈদের পরে ছুটি নিবে এইকথাও কইলেন । ইফতারির আগেই আমরা ভৈরব পৌঁছাইয়া যাইতে পারবো মনেহয় ।

 

অ-সম্পূর্ণ দিন আমাদের…

বেকেটের নাটকের চাইতে ভিন্ন কিছু না, এই জীবন

প্রতিটা পর্বের ভাগ, যে যে স্টেপ তুমি নিতে পারো, তার অপশনগুলা

ধারণা করা যায়, বড় জোর ১৪-১৫টা, এর বেশি কিছু আর কি হইতে পারে

যখন দেখা যাইতেছে, প্যার্টানটা, তুমি দেখতেছো… কি যে ভয়াবহ

এক একটা রোবট দৃশ্য; তুমি জানতেছো যে, ভিন্নতাগুলা, কোনটার পর কোনটা

 

এর চে করুণ স্বপ্নদৃশ্য আমি আর দেখি নাই কখনো…

Continue reading