আনবিলিভেবল

MV5BN2Q3OWQ1Y2UtN2E3OS00ODA2LWE1Y2EtYmY5OWMzNWYzMDZmXkEyXkFqcGdeQXVyMzY0MTE3NzU@._V1_

দেখবো দেখবো কইরা দেখা হইতেছিল না; পরে দেইখাই ফেললাম, আনবিলিভেবল নামের এই মিনি সিরিজ’টা। :)

রেইপ নিয়া এই আর্টিকেল’টা লেখার জন্য পুলিৎজার প্রাইজ পাইছিলেন রাইটার’রা, ২০১৬ সালে। আম্রিকাতে রেইপের ইনভেস্টিগেশনে অনেক চেইঞ্জও নাকি আসছে, এই আর্টিকেল’টা ছাপা হওয়ার পরে। এই পুরা ব্যাপারটা নিয়া একটা বইও ছাপা হইছে, ২০১৮ সালে। তো, অই আর্টকেল’টা নিয়া বানানো হইছে এই মিনি সিরিজ’টা, ২০১৯ সালে। ১টা সিজন, ৮টা এপিসোড।

দেখতে গেলে যা হয়, অনেক জায়গাতে তো চোখ আটকায়া যায়। এইরকম কয়েকটা জিনিস’টা নিয়া বলি।

একটা হইতেছে, রিপিটেশন। মারিয়া’রে বারবার তার রেইপের কথা বলা লাগে; আর বলা মানে তো খালি বলা না, তারে মনে করাও লাগে; আর যখন মনে করি আমরা বা দেখি, তখন ঘটনা তো বারবার ঘটতে থাকে আসলে! (টিভি অ্যাডগুলা দেখবেন, এই চালাকি’টা করে। এখন নিউজগুলাও করে। অন্য অনেক কিছুই।…) এইরকম একটা বাজে ঘটনা, বারবার বলতে বাধ্য করাটা তো আরেকটা ক্রাইম! আর কোনরকম কমপ্যাশন বা এনগেইজমেন্ট ছাড়া শোনা’টাও খুবই ক্রুয়েল একটা জিনিস। আর এইসবের ভিতর দিয়া একজন রেইপের ভিক্টিমরে সোসাইটি বা তার চারপাশ না, বরং সিস্টেমটাই ভিক্টিম কইরা তোলে।

আর ইল্যুশন’টা কেমনে তৈরি হয় দেখেন, কনটেক্সট’টা দিয়া। যে, মারিয়া’র মধ্যে তো এক ধরণের বেয়াদবি আছে; শে অ্যাটেনশন চায়, এই কারণে শে বানায়া থাকতে পারে, রেইপের ঘটনা’টা – এইরকম অনুমান করাটা পসিবল হয়। মানে, কো-রিলেশন তো আছে ঘটনাগুলার বা আমাদের অ্যাটিটুডগুলার। যেমন, যে রেপিস্ট, দেখা যায় তার ডমিস্টিক ভায়োলেন্সেরও হিস্ট্রি থাকতে পারে – এইটা মিছা কথা না; কিন্তু যেই লোক ডমিস্টিক ভায়োলেন্স করে, সে-ই রেপিস্ট – এইরকম না। মানে, কেউ ড্রাগস করে বইলা ছিনতাইকারী না; কিন্তু অনেকে ড্রাগসের টাকা যোগাড় করার লাইগা ছিনতাই করে তো, এইরকম। মানে, যেই কো-রিলেশনগুলারে আমরা মিলাইতেছি, তার ভিতর দিয়া একটা ইল্যুশন বা রিয়ালিটি’রে তৈরি করতেছি! প্রসেস’টা তো একই! আমাদের কনশাসনেসের জায়গাটাতে আলাদা না করতে পারলে মুশকিলই।

মারিয়া ফোর্সড হয় একটা রিয়ালিটি’রে ইল্যুশন বলতে; একইভাবে অনেক ‘ইল্যুশন’ আছে, যেইটারে ‘রিয়ালিটি’ বলতে পারতেছেন না আপনি। এই জিনিস’টা ট্রমাটিক তো; মেবি পাগলামি’রও শুরু।… এই যে রিয়ালিটি বা ইল্যুশন, এর মাঝখানে দাঁড়ায়া থাকতেছে খালি একটা প্রমাণের সুতা। যে, প্রমাণ তো নাই! বা এতো দূরের জিনিস যে, প্রমাণগুলারে একসাথে করা যাইতেছে না, ভিজিবল করা যাইতেছে না!…

এইখানে দেখবেন, ‘সুফীজম’ বা ‘বুড্ডিজম’ বা ‘মিস্টক’ ব্যাপারগুলা চইলা আসে (অনেক সময় সাত্বনা হিসাবে, রিলিফের টুল হিসাবে বা অজুহাত হিসাবেও…), মানে যেইগুলা রেশনালিটি’র বাইরে, সেই স্পেইসগুলা রিলিভেন্ট হয়া উঠতে চাইতেছে। মানে, এইটা খালি রিয়ালিটি আর ইল্যুশন না, রেশনালিটি আর ইরেশনালিটি’র মাঝখানের স্পেইসটাও, যেইটা চাপা পইড়া থাকতেছে ‘প্রমাণের’ নিয়মগুলার ভিতর।

আমরা বুঝতে পারতেছি, এই নিয়মগুলা এনাফ না, কিন্তু তাই বইলা ঘটনাগুলা যে ঘটে না – তা তো না! যেইভাবে ঘটনাগুলা ঘটতেছে আমাদের দেখার জায়গাটা সেইগুলারে বাদ দিয়া যাইতেছে সবসময়, বা ধোঁকা দিতে পারতেছে; কিন্তু সেইটা তো মানতে পারা’র মতন কোন জিনিস না।

আর এই কারণে, চেইতা যাইতে পারা’টা দরকারি একটা ঘটনা। গ্রেস (পুলিশের ডিটেক্টিভ) টেগার্ট’রে ( সিবিআই’র অফিসার’রে) বিশ্বাস করতে পারে না এই কারণেই যে, কই, অর ভিতরে তো চেত’টা নাই! সে তো ফিল-ই করে না! সে হেল্প করবে কেমনে! মানে দেখেন, ইন্টেলেক্ট কোনভাবেই ইমোশনলেস ঘটনা না, বরং ইমোশনটারে কেমনে ফিল করবেন, ডিল করবেন, সেইটার ঘটনা।

এই রেইজ’টা বা চেইতা যাওয়া’টা আসতেছে অই জায়গাটা থিকা যে, যেইটা ‘সত্যি’ সেইটারে তো আমরা বলতে পারতেছি না! উল্টা এইটারে ‘সত্যি’ বইলা ভাবি বইলা ঝামেলায় পড়তে হইতেছে আমাদের!… এর স্ট্রেস’টা নিতে হইতেছে সবসময়ই আমাদেরকে। এক সময় একটা কালেক্টিভ ট্রেস, বা সোশ্যাল ট্রমা’র জায়গাও তৈরি হওয়ার কথা। Continue reading

মানি হেইস্ট

AAAABX5QZV_-arr9FwikCpH7eCKIDX4Clmcp6AE08LBXJ3cTQJiIWEc4ms0nI5R8PVTO__poOHWMHWUEewWVZlmW_pC5iLWwhH-tYLvbaoFE0jvLP8X3E_NFwCC1DuqgYg

Money Heist নিয়া কিছু কথা বলছিলাম আগে; তো, এর বাইরেও আরো ৩টা জিনিস মনে হইছিল, তখন আর বলা হয় নাই। এখনো যে খুব বলতে ইচ্ছা হইতেছে, তা না, যেহেতু মনে হইছিল, ভাবলাম বইলা রাখি।

(জানুয়ারি মাসে লেখা পয়েন্ট দুইটা আগে দিতেছি, আর কয়দিন আগে যেইটা ভাবছিলাম, সেইটা পরে রাখতেছি)

১. মানি হেইস্টের থার্ড পার্টে রেকোল (পুলিশের ইন্সপেক্টর, চিফ নেগোশিয়েটর) যখন জাইনা যায় যে, প্রফেসরের কোন সোশ্যাল সিকিউরিটি নাম্বার নাই, যখন ম্যানুয়াল থিকা ডিজিটাইজড করতেছিল ন্যাশনাল ডাটাবেইজ, তখন সে আর তার আইডি রিনিউ করে নাই, তখন শে এই ডায়ালগ’টা দেয় যে, তুমি তো বাঁইচা নাই, এগজিস্টই করো না, তাইলে তোমারে মাইরা ফেললে তো কিছু যায় আসে না, কারণ তুমি তো নাই!

খেয়াল করেন ব্যাপার’টা, ন্যাশনাল আইডি কার্ড করা হয় মানুশ গোণার লাইগা, আপনারে একটা আইডেন্টিটি দিয়া আরো আরো ‘নাগরিক সুবিধা’ ‘সিকিউরিটি’ দেয়ার লাইগা… মানে, এইরকমই তো বলা হয়, তাই না? কিন্তু দেখেন, এইটা তার উল্টাটা; আপনার আইডেন্টিটি’টারে, এগজিসটেন্সটারে এইটা দখল কইরা ফেলে। একটা ন্যাশনাল আইডি কার্ড দিয়া আপনারে ‘একটা পরিচয়’ দেয়া হয় না, বরং আপনার এগজিসটেন্সটারেই নিয়া নেয়া হয়, আপনি আছেন কি নাই – সেইটার ফয়সালা হয়!

এইটা আমরাও জানি। প্রফেসরও জানতেন, এই কারণে নিজের আইডেন্টিটি গোপন রাখার লাইগা এই কাজ করে সে।

মানে, ন্যাশনাল আইডি কার্ড দিয়া আমাদের আইডেন্টিটি যাচাই করা হয় না খালি; এইটা ছাড়া আমরা মানুশ হিসাবে নিজেদেরকে দাবি-ই করতে পারবো না!

ব্যাপারটা আমরা যে জানি না – তা না; কিন্তু এই এক্সটেন্ড তক আমরা মেবি ভাবতে রাজি না, এতোটা।

২. এই সিরিজে আরেকটা জিনিস আছে। মোরাল জায়গাটা। প্রফেসর যেমনে রেকোল’রে কনভিন্স করে ‘লিকুইডিটি ইনজেকশনের’ আইডিয়াটা দিয়া।… মানে, যে কোন ডাকাত’রেই মনে মনে রবিনহুড হইতে হয় আসলে। (বা পুলিশ হইলে মাসিহা। মানে, মোরাল একটা জায়গা রিকোয়ার্ড। পুলিশের জায়গাটা যে আজাইরা, এইটা আমরা জানি, কিন্তু ডাকাতদের জায়গাটাও কাছাকাছি রকমের জিনিসই আসলে।) আর এই জায়গাটা ফানি মনে হইতে পারে; কিন্তু দরকারি আসলে। যখন ধরেন, কাস্টমসে চাকরি কইরা ঘুষের টাকায় কেউ মসজিদ বানায়, এইরকম টাইপের জিনিস।

যে একটা ‘অন্যায়’ আমি করতেছি, কিন্তু সেইটা দিয়া একটা ‘ভালো’ কাজ তো আমি করছি! বা এইখানে প্রফেসর যেইটা বলে, লিকুইডিটি ইনজেকশন করে পলিটিশিয়ান, বুরোক্র্যাট, বিজনেসম্যান’রা, তো সেইটা আমরা করতেছি; ওই পাওয়ার’টা খালি আমরা নিতেছি! মানে, একটা মোরাল গ্রাউন্ড লাগে আসলে।
Continue reading

~ ডেক্সটার সিজন টু ~

11438

সেলফরে এক্সপ্লেইন করা যায় না আসলে। একটা ধূলার কণার ভিতর দিয়া পুরা দুনিয়া দেখতে পারেন আপনি (কাব্য না এইটা, পসিবল); কিন্তু ধূলার কণা যে কি জিনিস সেইটা বলতে পারবেন না। এইটা ওইটা বইলা বুঝাইতে হইবো যে, বাতাসে ওড়ে জিনিসটা, খালি চোখে এমনিতে দেখাও যায় না ঠিকমতো… মানে, ধূলার কণা হইলো একটা আমার দেখা ধূলিকণা, টায়ারিংই এইরকম বলতে চাওয়াটা। এইরকমের একটা ঝামেলা আছে ডেক্সটারের সেকেন্ড সিজনের কাহিনিটাতে।

নিজের ভাইরে খুন কইরা ঝামেলাতে আছে সে। খুন করতে পারে না আর। গার্লফ্রেন্ডের এক্স-হাজব্যান্ডরে জেলে পাঠানোর ঘটনাটাতে ধরা খাইয়া সত্যি কথা বলতে হয়। বইলা বিপদ আরো বাড়ে। সেলফ বইলা একটা বালছাল রিভিল হইতে শুরু করে। আর যখন সেলফ বইলা একটাকিছুরে ভাবতে পারতেছেন আপনি তখন আদার-এর অ্যাডভাইস নিতে হয়। আদাররেই আপনি সেলফ ভাইবা বসেন ভুল কইরা, চাইতে থাকেন তারে; একটা সময় পরে বুঝা যায় আদারের ডিজায়ারটাই আদার। আদারও আসলে সেলফই আরেকটা। তখন সে তার ইমাজিনেশনের কাছে ফেরত আসতে পারে আবার। এইসব ভগিচগি করতে গিয়া খুনের ব্যাপারটাই মাইনর হয়া যায়। খুন করাটা কি ভালো, না খারাপ? কিসের বেসিসে সিরিয়াল কিলার হইবো আমরা? – এইসব নিয়া আজাইরা ফিলোসফিক্যাল প্যাঁচাল। Continue reading