টমাস ট্রান্সটোমারের নোবেল বিজয়

trans

১.

লিখতে আর ইচ্ছা করে না।

লিখতে গেলে খালি নানান কথা মনে হয়। অব্যক্ততার ভিতর দিন যে পার হয়, সেইরকম না। মনে হয়, পুনরাবৃত্তি কত আর! ১৫/১৬ বছর আগে পড়া জর্জ সেফেরিসের কবিতার অনুবাদ মনে হয়, ‘একই কথা তুমি বারবার আমাকে বলবে, বন্ধু/কিন্তু একজন শরণার্থী’র ভাবনা, একজন পণ্যে-পরিণত-হওয়া লোকের ভাবনা বদলাবার চেষ্টা করো/পারবে না’; ঐ ১জন ১জন লোক নিয়াও আমার কোন সমস্যা নাই। সমস্যা নিজেরে নিয়াই। একই কথা বারবার কেন আমি বলবো?

কিন্তু ঘুইরা-ফিরা ওই দুই একটা কথাই। ‘কবি যদি হন এমন একজন ব্যক্তি, যার বলবার মতো অনেক কথা আছে, তাহলে আমি কখনোই কবি নই’; এইভাবে কবিতারে যে নানান কাজে রান্নায় হলুদের মতোন ব্যবহার করা যায়, এইটাই মনে হয় কবিতার সবচে’ বড় শক্তি। আবার সবচে’ বড় দুর্বলতাও! 

২.

বিষয়টা কবি ও কবিতা নিয়াই; কবি টমাস ট্রান্সটোমারের নোবেল বিজয়।

সাহিত্যে নোবেল পুরষ্কার ত প্রতি বছরই দেয়া হয়। প্রতিবারই মনে হয়, কে নোবেল পাইলেন, তার চাইতে জরুরি কেন পাইলেন? – এই জিজ্ঞাসাটা। সাহিত্যের নোবেল পুরষ্কার যে পলিটিক্যাল সিগনিফিকেন্সটারে তুইলা ধরে, সেইটারে বুঝতে পারাটা দরকারি মনেহয়। কারণ এই নোবেল পুরস্কার কিছু প্রতিধ্বনি তৈরি করে, প্রতিকল্প বানায়, জোড়া দেয়ার এবং প্রতিফলনের চেষ্টাতেও নামে। এইগুলা খারাপ কিছু না, ভালোই। ভালো কারণ, সাহিত্য যে অনেকরকমের, সেই প্রক্রিয়াটারে সে জারি রাখে। কিন্তু এর ভিতর দিয়াই একটা ধারা’রে সে সিগনিফিকেন্ট কইরা তোলে। এইবার যেমন, টমাস ট্রান্সটোমার।

উনার সিগনিফিকেন্স যেইটা দেখি, সেইটা হইলো, অ-রাজনৈতিকতা। এইটা খুবই অস্বস্তিকর যখন একটা লেখারে বা একজন লেখকরে শুধুমাত্র তার ‘রাজনৈতিকতা’ দিয়া বিচার করা  হয়। এইটা একবারেই সম্ভব না। কিন্তু এইটাই করা হয়, বেশিরভাগ সময়। এর বিপরীতে সাহিত্যরে বিনোদন সামগ্রী বানানোর একটা চেষ্টা ত আছে। (ওইদিকে না গিয়াও বলা যায়) কবিতা হইতেছে এই ধারায় চূড়ান্ত মাধ্যম। মানে, সাহিত্যের অস্পষ্টতারে কবিতার ফর্মের ভিতর দিয়া জাস্টিফাই করাটা সবচে’ বেশি সম্ভব।

অথচ বর্তমান পৃথিবীতে চূড়ান্ত একটা রাজনৈতিকতার ভিতর আমরা আছি। টমাস ট্রান্সটোমারের কবিতা তারে অস্বীকার করার একটা উপায় সাজেস্ট করে, রিলিফ দেয়। এই কারণেই হয়তো তার কবিতারে জরুরি কইরা তোলা। টমাস ট্রান্সটোমারের নোবেল বিজয়রে তাই আধ্যিপত্যবাদী রাজনৈতিকতার একটা উইপেন হিসাবে দেখা সম্ভব।

এর মানে এই না যে, টমাস ট্রান্সটোমারের কবিতা ভালো না বা তার কবিতার রাজনৈতিকতারে নেয়া সম্ভব না। সম্ভব হইতে পারে, তার রাজনৈতিকতারে আধিপত্যবাদের বিপরীতে পাঠ করা। কিন্তু তিনি যেভাবে পঠিত হন, সেইখানে ‘এড়াইয়া যাওয়া’র একটা ধারারে তার কবিতা সাজেস্ট করে। এইটা বেশ আনন্দদায়কভাবেই সম্ভবপর মনে হয়।

৩.

তাইলে নোবেল সাহিত্য পুরস্কার কি ‘আধিপত্যবাদী রাজনৈতিকতার একটা উইপেন’? এর আগে হ্যারল্ড পিন্টার’রে দিলো না?

সেইটারও রাজনৈতিকতা ছিল। একটা সার্টেইন টাইমে একটা পলিটিক্যাল অ্যাক্টিভিটি’রে আপহোল্ড করাটা, ওইটার ভিতর দিয়া তার বিরোধিতাটারে জাস্টিফাই করার একটা স্পেইস ক্রিয়েট করার লাইগাও ইউজ করা যাইতে পারে। যে, এরেও তো নিছি আমরা! এই নেয়াটা বা না-নেয়াটা কেমনে সম্ভব হয়, সেইটা ব্যাখ্যা করতে পারাটা কবিতারই কাজ, সবসময়।

সাহিত্যের যে কোন পুরস্কার আবশ্যিকভাবে তার অর্ন্তগত রাজনৈতিকতারই একটা সমর্থন।

 

অক্টোবর ১০, ২০১১

আরো পড়তে পারেন

বৃষ্টি
বৃষ্টি কি আসবে? বৃষ্টির অপেক্ষায় বইসা আছে দিনমান বরফের ফোঁটাগণ, শাদা শাদা মন অন...
ক্যাসিওপিয়া
  এইটা গ্রহেরই ফের, বুঝলা… একতলা দালানের ছাদে সন্ধ্যাবেলা চিৎ হয়া শুইয়া দে...
ট্রানজিসনাল সময়
কোথাও এসে বসে থাকি। বসে থাকার মতো সময় আছে কোথাও। শব্দ-জর্জরিত; ছন্দ-বেষ্টিত। একটা বিকাল। য...
পূর্ববঙ্গের ভাষা, শনিবারের চিঠ...
শনিবারের চিঠি নিয়া শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরী কিছু কথা বলছেন উনার বই ‘আমার দেবোত্তর সম্পত্তি’ত...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *