#কবিতা #প্রেম #মিডিয়াম #ফেসবুক #হেইট্রেট #বুলিং #হাট #খেলা #ক্রুয়েলিটি #হাততালি

download

আমারে কয়েকজনই জিগাইছেন, নানান টাইমে, প্রেম নিয়া কেনো এতো কবিতা লেখা হয়! দুনিয়াতে কি আর কোন কিছু নাই, কবিতা লেখার মতোন!

আমিও খেয়াল করছি, মোস্টলি দুই-তিনটা সাবজেক্ট নিয়াই কবিতা লেখা হয় – প্রেম, পলিটিকস, মরা’র চিন্তা… এই কয়টা জিনিসই, ঘুইরা-ফিরা। অন্য জিনিস নিয়া যে কবিতা লেখা যায় না বা হয় না – তা না; কিন্তু কবিতা বলতেই প্রেমের একটা ঘটনা আছে, বা প্রেমে না পড়লে মানুষ কবিতা কেমনে লেখে – এইরকম!

তো, এই প্রশ্নের তেমন কোন উত্তর আমি করতে যাই নাই। (উত্তর যে নাই – তা না, নানান সময়ে নানান উত্তর তো দেয়া-ই যায়।) কিন্তু একটা জিনিস গত কয়েকদিন ধইরা মনে হইতেছিলো, এক একটা মিডিয়াম এক একটা ফিলিংস’রেই উসকায়া দেয়। যেমন, ফেসবুক – মিডিয়াম হিসাবে এক রকমের হেইট্রেট বা বুলিং’রে প্রমোট করে।

এর একটা কারণ মেবি এইরকম যে, ধরেন, একটা হাটে বা ক্রাউডেড প্লেইসে আমরা যে যার কথা কইতেছি বা খেলা দেখাইতেছি, এখন যে যতো ক্রুয়েল গেইম’টা দেখাইতে পারবো, লোকজন তো সেইখানেই আসবো বেশি। হাটে বা পাবলিক গেদারিংয়ে সবাই তো খেলা দেখাইতে আসেন না, দেখতেই আসেন; চোখের সামনে যা পড়ে, দেখি তো আমরা; আর যা কিছু একসাইটিং – তা-ই তো চোখে পড়ে বেশি। এইরকম। তাই বইলা ফেসবুক একটা হেইট্রেট বা বুলিং করার মিডিয়াম – এইটা আমার ক্লেইম না; কিন্তু মিনিমাম লেভেলে এক রকমের ‘হাততালি’ দেয়ার ব্যাপার’রে এনকারেজ করেই।
Continue reading

অন জোকস (২)

439022-kapoor-and-sons

: তুম ইতনে পেরেশান কিঁউ হো, অর্জুন?
: মত পুছো, মেরা দিন ইতনে বাকোয়াজ যা রাহে হে না… মতলব…
: গার্লফ্রেন্ড সে লড়াই হোয়ি?
: উমম হুঁ
: তো ফির?
: ভাই সে…
: বাই সে!
: বাই সে নেহি, ভাই সে! মে বাই সে কিঁউ লড়ো ইয়ার!… লড়োঙ্গা তো ইয়াহা কিঁউ বেঠেঙ্গে, অ্যায়সে…

………………………………………………………………………………………..

জোকস যে কি পছন্দ আমার! সিনেমা’তে এইটা মোটামুটি কমেডি সিন, জোকস।

এক পার্টি’তে গিয়া আলিয়া ভাট গাঞ্জা খাওয়ার লাইগা বাথরুমে ঢুইকা দেখে সিদ্ধার্থ মালহোত্রা মুখ বেজার কইরা প্যানের উপরে বইসা রইছে, তখন এই কনর্ভাসেশন হয়।

দুইটা জিনিস এইখানে। ব্রেকাপ ছাড়া, প্রেমের ঝামেলা ছাড়া হিন্দি সিনেমা’তে অ্যান্ড ইভেন লাইফেও ইয়াং লোকজনের আর কি কারণে খারাপ লাগতে পারে? :p ভাইয়ের লগে মারামারি করা’র কারণে মন-খারাপ এইটা তো খুবই অ্যাবসার্ড ব্যাপার! :)আলিয়া ভাট খালি গাঞ্জা খাইছে বইলা না, এমনেও এইটা তো একটা ডিসট্যান্স রিয়ালিটি। :) এই কারণে বয়ফ্রেন্ড, গার্লফ্রেন্ড টাইপের ঝামেলা যে না, এইটা মন থিকা সরতেই টাইম লাগে। Continue reading

#বাংলা #ইংলিশ #হরফ #ওয়ার্ড #গুলশান #বনানী #বারিধারা #ধানমন্ডি #ক্লাস_অ্যাপিয়েরেন্স_ইন_ল্যাঙ্গুয়েজ

DNCC20180222145606

ছবি দিয়া কইতে পারলে বেটার হইতো। কিন্তু গুলশান-বনানী-বারিধারা এলাকায় যারা ঘুরাফিরা করেন তাদের সবারই চোখে পড়ার কথা জিনিসটা। যে, সব দোকানের নাম তো ইংলিশ আর দোকানের সাইনবোর্ডও ইংলিশেই লেখা আছিলো।

কিন্তু গত ফেব্রুয়ারি মাসের শেষদিক থিকা মেবি কোন কারণে (হইতে পারে, সরকারি আদেশে) মেইন সাইনবোর্ডের পাশে একটা ব্যানারে বাংলা হরফে লেইখা টানানো হইছে। তো, ব্যাপারটা খুবই মজার হইছে, নানান কারণেই।

এক তো হইলো, নামটা তো ইংলিশ, বাংলায় কোন অনুবাদ করা হয় নাই। ইংলিশটাই বাংলায় লেখা হইছে, যেমন Nando’s-রে লেখা হইছে ন্যান্দো’স (বানানটাও খেয়াল করেন, নান্দু’স লেখলে তো খুবই বাজে লাগতে পারতো :), ভুলও হইতো একরকম) … এইরকম। তো, বাংলা হরফে/ওয়ার্ডে ইংলিশ পড়তে একটু আনইজিই লাগতেছে। আবার একটু হাসিও আসতেছে।

হাসি আসতেছে মেইনলি দুইটা কারণে। একটা তো হইলো যে, ইংলিশগুলি তো আসলে ওয়ার্ড না খালি, ব্রান্ড লগোও, আর বাংলাগুলি তো খালি নাম; বেশিরভাগ কেইসেই। আর বাংলা লেখাটা যেই সারফেইসে আছে সেইটা ইনফিরিয়রও।

Continue reading